এমবি কম কাটার উপায় জানুন অল্প টাকায় বেশিদিন চলুন।

এমবি কম কাটার উপায় জানুন অল্প টাকায় বেশিদিন চলুন।

এখনকার দিনে ইন্টারনেট ছাড়া আমাদের এক মুহূর্তও চলে না। আর আমরা যারা মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহারে অভ্যস্ত তাদের জন্য মোবাইল ইন্টারনেট ডাটা বা এমবি যে কতটা মূল্যবান তা শুধু আমরা নিজেরাই জানি, একথা আর কাওকে বলে বুঝান যাবেনা। এন্ড্রয়েড মোবাইল ডিভাইস ব্যবহারকারীদের একটা খুব কমন সমস্যা হল খুব দ্রুত এমবি শেষ হয়ে যাওয়া। এই সমস্যার সমাধান আছে কি? অবশ্যই আছে। আজকের ব্লগে আমি আপনাদের এমনই কিছু ট্রিক্স শিখিয়ে দিব যাতে করে আপনি এমবি কম কাটার উপায় সম্পর্কে জেনে যাবেন। তাহলে আসুন শুরু করা যাক-

মনে রাখবেন, আমরা অনেক সময় মোবাইল অপারেটরকে দোষ দিয়ে থাকি, অনেক সময় কলসেন্টারে কল করে ঝাড়ি মারি, কিন্তু এতে আপনার-আমার কোন লাভ নেই বরং তাদের সাথে কথা বলে আরোও খরচ বাড়াই। এর চেয়ে নিজেরা সতর্ক হই- এমবি কম কাটার উপায় সম্পর্কে জানি।

এমবি কম কাটার উপায়

প্রথমেই আপনাদের জানতে হবে আপনার মোবাইল কেন এবং কখন এমবি কাটে, এ ব্যাপারগুলো আগে জেনে নিতে পারলেই সমস্যার অর্ধেক সমাধান হয়ে যায়। বাকিটা আপনি নিজেই সমাধান করে নিতে পারবেন- আর আমি তো আছিই, কিভাবে মোবাইলে এমবি কম কাটা যায় সেটা জানানোর জন্য। তাহলে আসুন একে একে জেনে নেই এমবি কম কাটার উপায় সম্পর্কে।

অপ্রয়োজনে মোবাইলের ডাটা কানেশন অফ রাখুন

আপনার মোবাইলে ডাটা কানেকশন সারাদিন অন থাকলে আপনার মোবাইল তার ইচ্ছামত কিংবা বলা যায় প্রয়োজনমত ডাটা আদান-প্রদান করে থাকে। আপনি যেসব এপ্স চালু করে রাখেন সেসব এপ্স তাদের প্রয়োজন অনুসারে ডাটা আদান-প্রদানের মাধ্যমে আপনার এমবি খরচ করে থাকে। তাই প্রথম সমাধান হল আপনার মোবাইলের ডাটা কানেশন প্রয়োজন না থাকলে অফ রাখুন। এটা এমবি কম কাটার সবচেয়ে বড় উপায়।

এপ্স এর অটোআপডেট বন্ধ রাখুন

মনে রাখবেন, আপনার মোবাইলে যত এপ্স বা এপ্লিকেশন আছে তা প্রায় প্রতিনিয়তই আপডেট হয়, আপনি ব্যবহার করেন আর নাই করেন। কারন এপ্স নির্মাতা প্রতিষ্ঠান কিছুদিন পরপরই নতুন ভার্সন মার্কেটে ছাড়ে। তাই অটো আপডেট অপশন দেয়া থাকলে, নতুন ভার্সন এলেই সে আপনাকে জিজ্ঞেস না করেই আপনার মোবাইলের মূল্যবান এমবি খেয়ে আপডেট হয়ে যায়।

এ থেকে বাঁচার একটাই আপনি অটো আপডেট অফ করে দিন, শুধুমাত্র যেগুলো আপডেট করা আপনার জন্য দরকার সেগুলো নিজে নিজে মানে ম্যানুয়ালি আপডেট করে নিন। এপ্স এর সেটিংস এ গিয়ে অটোআপডেট বন্ধ করে দিতে পারেন খুব সহজেই। এমবি কম কাটার এটাও অন্যতম বড় উপায়।

অপ্রয়োজনীয় এপ্স রানিং রাখবেন না

আমরা সাধারণত কি করি, ব্যাকে গিয়ে মোবাইলের চালু থাকা এপ্সগুলো বন্ধ করে দেই। কিন্তু আপনি জানেন কি এপ্সটি আপনার সামনে থেকে চলে গেলেও এপ্সটি কিন্তু ঠিকি চালু থাকে। সেকারনেই ফেসবুক মেসেঞ্জার থেকে বের হয়ে গেলেও ম্যাসেজ এলেই আপনাকে নটিফিকেশন আসতে থাকে কিংবা কেও কল করলে আপনাকে পেয়ে যায়।

এখন আপনি যদি না না চান বা আপনার যদি ভাইবার, ইমো, হোয়াটসএপ, টেলিগ্রাম সবগুলো এপ্স না প্রয়োজন হয় শুধু প্রয়োজনীয় এপ্সটি রেখে বাকি এপ্সগুলো আনইন্সটল করে দিন।

হটস্পট ব্যবহারে সতর্ক থাকুন

আমরা অনেকেই হটস্পট ব্যবহার করে ল্যাপটপ কিংবা কম্পিউটারে ডাটা ব্যবহার করে থাকি। এতে করে আপনার ল্যাপটপ কিংবা কম্পিউটার এর অপারেটিং সিস্টেম আপডেট করার সময় আপনার মোবাইলের এমবি খেয়ে ফেলতে পারে।

আপনার হটস্পট এর পাসওয়ার্ড ঘনঘন পরিবর্তন করুন। কেননা, অন্য কেও আপনার অগোচরে আপনার ডাটা ব্যবহারের সুযোগ পেয়ে যেতে পারে।

আর অবশ্যই আপনার হটস্পট পাসওয়ার্ড কারও সাথে শেয়ার করবেন না। পাসওয়ার্ড নিয়ে সতর্ক থাকুন। পাসওয়ার্ড নির্বাচনে সতর্ক হোন, এখানে পাসওয়ার্ড এর সতর্কতা নিয়ে পড়ে দেখুন।

ফেসবুকে ভিডিও অটোপ্লে অপশন বন্ধ রাখুন

ফেসবুকে বাই ডিফল্ট একটি অপশন চালু থাকে, সেটা হল ভিডিও অটোপ্লে। খেয়াল করে দেখবেন আপনি স্ক্রল করার সময়ই ভিডিও চালু হয়ে যায়। যা একই সাথে বিরক্তিকর এবং আপনার এমবি খরচের কারণ। তাই আপনার উচিত ফেসবুকের ভিডিও অটোপ্লে অপশন ডিজেবল করা। আবে করবেন? এখানে এই ব্লগে পড়ে দেখুন।

তাছাড়া অপ্রয়োজনে কোন ভিডিও চালাবেন না। এতে আপনার ভিডিও চালানোর এমবি এবং সময় দুইই বাঁচবে।

ডাটা সেভার চালু রাখুন

আপনার মোবাইলের ডাটা সেভার অপশন চালু রাখুন। আপনার মোবাইলে যদি এই অপশন না থাকে তাহলে যেকোন ডাটা সেভার এপ্স ডাউনলোড করে নিন। এতে আপনার ইচ্ছামত সেটিংস করে নিতে পারবেন।

এমনকি আপনি চাইলে মান্থলি বাজেট ফিক্সড করে অ্যালার্ম সেট করে নিতে পারবেন। প্রতিদিন কত এমবি আপনি খরচ করতে চান তার লিমিট করে রাখুন। এপ্স আপনাকে জানিয়ে দেবে আপনাকে কন্ট্রোল করতে সহায়তা করবে।

বেশি ডাটা খরচ এমন কাজে ওয়াইফাই ব্যবহার করুন

কিছু কাজ আছে যেগুলো না করলেই নয়। মানে আপডেট আছে যেগুলো আপনাকে করতেই হয়। মোবাইলের এন্ড্রয়েড ভার্সন আপডেট, প্রয়োজনীয় এপ্স এর আপডেট ইত্যাদি। এক্ষেত্রে সবচেয়ে ভাল হয় ওয়াইফাই এর ব্যবহার। এসব কাজ সব একসাথে জমিয়ে কোন বন্ধু কিংবা আত্মিয়ের বাসায় গিয়ে আপডেট করে নিতে পারেন।

ওয়াইফাই নেটওয়ার্কের আওতায় এলে মোবাইল যেন অটোমেটিক ওয়াইফাই ডাটা চালু করে দেয় সেটা নিশ্চিত করুন। এজন্য ওয়াইফাই অপশনটি চালু রাখুন সবসময়।

অল্প মেয়াদে বেশি ডাটা কিনুন

আপনার যদি মাসে ৩০ জিবি ডাটা লাগে আপনি মাসের শুরুতেই একবারে কিনে নিবেন। ২/৩ জিবি করে বারবার কিনবেন না। এতে আপনি লাভবান হবেন। অল্প মেয়াদে বেশি ডাটা কিনতে পারেন এতে করে আপনি লাভবান হবেন।

এছাড়া শুধুমাত্র ভিডিও দেখার জন্য এমবি কিনতে পাওয়া যায়, সেসব প্যাকেজ নিয়ে দেখতে পারেন। যেমন- এয়ারটেল ফেসবুক প্যাক

কিংবা বড় প্যাকেজ কিন্তু ভ্যালিডিটি বা মেয়াদ কম এমন প্যাকেজ নিয়ে এসব প্রয়োজনীয় আপডেট একদিনে করে ফেলতে পারেন। যেমন ৩ দিন মেয়াদ ১ জিবি ডাটা ২০/৩০ টাকায় পেতে পারেন সব অপারেটরে।

বেশি দেখা ভিডিওগুলো ডাউনলোড করে নিন

আমাদের আজকের দিনের বাচ্চারা ইউটিউবে ভিডিও কার্টুন দেখতে চায়। আপনি চাইলেও এগুলো এড়াতে পারবেন না। তাহলে উপায় কি? উপায় আছে ভাই। আপনার বাচ্চা দেখবেন অল্প কিছু কার্টুনই বারবার দেখতে চায়। এক্ষেত্রে ঐ ভিডিও গুলো ডাউনলোড করে নিন। বারবার ইউটিউবে একই জিনিস দেখে খরচ কেন বাড়াবেন।

ভিডিওটি ইউটিউব থেকে মেমোরিতে ডাউনলোড করে সেভ করে নিন। কিভাবে? পানির মত সহজ। ইউটিউব থেকে মেমোরিতে ডাউনলোড করবেন কিভাবে দেখে নিন।

ফেসবুক ভিডিও ডাউনলোড করতে পারছেন না। আসুন দেখে নিন কিভাবে ফেসবুক ভিডিও ডাউনলোড করবেন।

ফেসবুকের স্ট্যাটাস কিভাবে আকর্ষণীয় ফন্টে দিবেন? আসুন জেনে নেই।

মোবাইল ফোন কেন গরম হয়? আসুন জেনে নেই।

ইউটিউবে অটোপ্লে বন্ধ করুন

অনেকের কাছেই শুনেছি ঘুমানোর সময় ইউটিউব দেখতে দেখতে ঘুমিয়ে গেছে আর সকালে উঠেই দেখেছেন মোবাইল ডাটা শেষ। কি হয়েছে- একের পর এক ভিডিও চলেছে সারারাত। এ থেকে বাঁচার উপায় কি? খুব সহজ। ইউটিউবের সেটিংস এ গিয়ে অটোপ্লে অপশন ডিজেবল করে দিন। আর একের পর এক ভিডিও অটোমেটিক শুরু হবেনা।

ক্লাউড স্টোরেজ নিয়ন্ত্রন করুন

এই ব্যাপারটি অনেকেই জানেন না, না এনে অযথাই মোবাইল অপারেটরকে দোষ দিয়ে থাকেন। আপনার এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোনটি একটি জিমেইল একাউন্টের সাথে সিংক করা, আর জিমেইল একাউন্ট আপনাকে তার ক্লাউডে ১৫ জিবি ফ্রি স্পেস দিচ্ছে, যা আমরা গুগল ড্রাইভ নামে চিনি।

আপনার মোবাইলে তোলা যেকোন ছবি কিংবা ভিডিও সেই ক্লাউডে বা গুগল ড্রাইভে অটোমেটিক আপলোড করে রাখছে। আপনি না চাইলে এই অপশনটি বন্ধ করে দিতে পারেন। এখনকার দিনে একেকটি ছবি ৫-১০ এমবি হয়ে থাকে, আর ভিডিও হলে তো কথাই নাই, যতবড় সময়ের ভিডিও তত বেশি এমবি।

তাই আপনি যদি না চান তাহলে আজই অটোআপ্লোড অফ করে দিন। একই সাথে এধরনের আরও কিছু এপ্স যদি আপনার মোবাইলে থেকে থাকে যেমন ড্রপবক্স অথবা অন্য কিছু, অবশ্যই তার আটোসিংক অপশন ডীজেবল করে দিন। ড্রপবক্স ব্যবহারের সুবিধা কি? জেনে নিন।

গেম খেলার সময় ডাটা অফ রাখুন

অফলাইনে গেম খেলুন। অনলাইনে গেম খেললে একইসাথে যেমন ডাটা খরচ তেমনি বিভিন্ন বিজ্ঞাপন আপনাকে বিরক্ত করতে পারে। তাই যেসব গেম অফ-লাইনে খেলা যায় তা অফ-লাইনেই খেলুন। এমবি বাচান, বিজ্ঞাপনের হাত থেকেও বাচুন। এটিও এমবি কম কাটার উপায় গুলোর মধ্যে অন্যতম।

ওয়াইফাই এসিস্ট বন্ধ রাখুন

মোবাইলের ওয়াইফাই এসিস্ট বন্ধ রাখুন। ওয়াইফাই এসিস্ট এর আজ হল আপনার ওয়াইফাই সিগন্যাল দুর্বল হলেই আপনার মোবাইল ডাটা ব্যবহার শুরু করে দেয়। এতে অপ্রয়োজনে আপ্পনার মূল্যবান এমবি খরচ করে ফেলে। ওয়াইফাই সেটিং এ গেলেই এটি ডিজেবল করে দিতে পারবেন। এটাও এমবি কম কাটার উপায়।

অবশেষে

আজকের ব্লগে আমি চেষ্টা করেছি এমবি কম কাটার উপায় সম্পর্কে আপনাদের জানানোর। আশা করি আমার এই ব্লগ আপনার ভাল লেগেছে। যদি ভাল লাগে অবশ্যই শেয়ার করার মাধ্যমে আপনি আপনার পরিচিত সবাইকে জানিয়ে দেবেন এবং নিচের লাইক বাটনে ক্লিক করবেন। ধন্যবাদ সবাইকে। যারা আমার ব্লগটি শেষ পর্যন্ত পড়েছেন- শুধুমাত্র সেইসব এয়ারটেল ব্যবহারকারীর জন্য ১ জিবি ফ্রি ডাটা কিভাবে পাবেন জেনে নিন

,

Leave a Reply