বিদ্যুৎ বিল হিসাব
বিদ্যুৎ বিল হিসাব
বিজ্ঞাপন

বিদ্যুৎ বিল হিসাব নিয়ে আমরা প্রায়ই বাসা-বাড়িতে একটা কনফিউশনে পরি। অনেক সময় আমরা বিদ্যুৎ বিল বিভ্রাটে পরে থাকি। মনে রাখবেন আধুনিক মিটারিং সিস্টেমে আপনার বিল নিয়ে কোন বিভ্রাটের সুযোগ নেই। আপনি যতটুকু ব্যবহার করবেন আপনার বিলে ঠিক ততটুকুই আসার কথা যদি না আপনার মিটার রিডিং ঠিকমত তোলা হয় অথবা আপনার মিটারে যদি কোন গন্ডগোল না থাকে।

তারপরেও জেনে রাখা ভাল আপনার বিদ্যুৎ বিল হিসাব কিভাবে তৈরি হচ্ছে। ব্যাপারটি আসলে খুবই সহজ, ক্লাস এইট/নাইনের ছাত্ররাও এই হিসাব সহজেই করতে পারবে। আসুন বসে পরি আপনার বাসার বিদ্যুৎ বিল হিসাব নিয়ে।

সূচিপত্র-

বিজ্ঞাপন

ডিপিডিসি বিদ্যুৎ ট্যারিফ প্লান (মার্চ ২০২০ থেকে কার্যকর)

বাসা-বাড়ির বিদ্যুৎ বিলে কয়েকটি স্লাব থাকে, স্লাবগুলো আগে জেনে নেওয়া যাক।যদি আপনার বিল ৫০ ইউনিট এর বেশি না হয় তাহলে ৫০ ইউনিট এর বিল হবে ৩.৭৫ টাকা হারে। আপনার মাসিক বিল যদি ৫০ ইউনিটের বেশি হয় তাহলে নিচের স্লাব অনুযায়ি বিদ্যুৎ বিল হিসাব হবে।

  • ০০-৭৫ ইউনিট= প্রতি ইউনিট ৪.১৯ টাকা হারে ।
  • ৭৬-২০০ ইউনিট= প্রতি ইউনিট ৫.৭২ টাকা হারে ।
  • ২০১-৩০০ ইউনিট= প্রতি ইউনিট ৬.০০ টাকা হারে ।
  • ৩০১-৪০০ ইউনিট= প্রতি ইউনিট ৬.৩৪ টাকা হারে।
  • ৪০১-৬০০ ইউনিট= প্রতি ইউনিট ৯.৯৪ টাকা হারে এবং
  • ৬০১ প্লাস ইউনিট= প্রতি ইউনিট ১১.৪৬ টাকা হারে ।

১লা মার্চ, ২০২০ থেকে ডিপিডিসি এই নতুন ট্যারিফ হার কার্যকর করেছে। সূত্রঃ ডিপিডিসি ওয়েব সাইট।

আর যারা পল্লী বিদ্যুতের গ্রাহক তারা পল্লী বিদ্যুৎ বিল হিসাব করতে চাইলে এই লিংকে গিয়ে নতুন ট্যারিফ হার দেখে আসতে পারেন।

এর বাইরে আপনাকে আরও যা জানতে হবে বিদ্যুৎ বিল হিসাব করার জন্য তা হলো-

  • নেট বিল = এনার্জি বিল+ মিটার বিল
  • এনার্জি বিল = পুরা মাসে ব্যবহৃত মোট ইউনিট (kWh) X ইউনিট প্রতি মূল্য (উপরে দেয়া আছে)
  • মিটার বিল = ডিমান্ড চার্জ + সার্ভিস চার্জ
  • ডিমান্ড চার্জ = ১৫ টাকা প্রতি কিলোওয়াট
  • সার্ভিস চার্জ = সিঙ্গেল ফেস ১০ টাকা, ৩০ টাকা থ্রি ফেস
  • ভ্যাট = নেট বিলের ৫%  ।
  • সময়মত বিল না পরিশোধ না করলে জরিমানা = নেট বিলের ৫%  ।

এবার আসুন কিছু সহজ ইঞ্জিনিয়ারিং টার্ম শিখি যা আপনার কারেন্ট বিল হিসাব করার জন্য লাগবে-

  • ১ kWh= ১ ইউনিট ( kWh = কিলোওয়াট আওয়ার )
  • ১ hp= ৭৪৬ ওয়াট ( hp = হর্স পাওয়ার )
  • ১০০০ W= ১ kW ( W= ওয়াট, kW = কিলোওয়াট )
  • h = সময়ের একক ঘন্টা ( h = আওয়ার )
  • ১ মাস = ৩০ কিংবা ৩১ দিন ( যে মাসে হিসাব করবেন )

এবার আসুন আপনার বাসার বিদ্যুতের ব্যবহার দেখে নেই

১। লাইট ২৫ ওয়াট প্রতিটি, আপনার বাসায় আছে ৫ টি, দৈনিক ব্যবহার গড়ে ৫ ঘন্টা।

২। সিলিং ফ্যান ৮০ ওয়াট প্রতিটি, আপনার বাসায় আছে ৩ টি, দৈনিক ব্যবহার গড়ে ১২ ঘন্টা।

৩। টেলিভিশন এলইডি ৫০ ওয়াট প্রতিটি, আপনার বাসায় আছে ১ টি, দৈনিক ব্যবহার গড়ে ৪ ঘন্টা।

৪। ল্যাপটপ ৫০ ওয়াট প্রতিটি, আপনার বাসায় আছে ১ টি, দৈনিক ব্যবহার গড়ে ৪ ঘন্টা।

৫। রেফ্রিজারেটর ১৫০ ওয়াট প্রতিটি, আপনার বাসায় আছে ১ টি, দৈনিক ব্যবহার গড়ে ১২ ঘন্টা।

৬। এয়ার কন্ডিশনার ১৮০০ ওয়াট প্রতিটি, আপনার বাসায় আছে ১ টি, দৈনিক ব্যবহার গড়ে ৮ ঘন্টা।

৭। আয়রন ১০০০ ওয়াট প্রতিটি, আপনার বাসায় আছে ১ টি, দৈনিক ব্যবহার গড়ে ০.৫ ঘন্টা বা ৩০ মিনিট।

৮। ওয়াসিং মেশিন ৫০০ ওয়াট প্রতিটি, আপনার বাসায় আছে ১ টি, দৈনিক ব্যবহার গড়ে ১ ঘন্টা

৯। মাইক্রোওভেন ১৫০০ ওয়াট প্রতিটি, আপনার বাসায় আছে ১ টি, দৈনিক ব্যবহার গড়ে ০.০৮ ঘন্টা বা ৫ মিনিট।

আপনার বাসায় যদি উপরে উল্লেখিত যন্ত্রাদির গড় ব্যবহার এরকমই হয় তাহলে ৩০ দিনে আপনার বাসার বিদ্যুতের লোড হিসাব হবে এভাবে-

১। লাইট = ২৫ ওয়াট X ৭টি  X ৬ ঘন্টা X ৩০ দিন= ১৮,৭৫০ ওয়াট-ঘন্টা।

২। সিলিং ফ্যান = ৮০ ওয়াট X ৩টি  X ১২ ঘন্টা X ৩০ দিন = ৮৬,৪০০ ওয়াট-ঘন্টা।

৩। এলইডি টেলিভিশন = ৫০ ওয়াট X ১টি  X ৪ ঘন্টা X ৩০ দিন= ৬,০০০ ওয়াট-ঘন্টা।

৪। ল্যাপটপ = ৫০ ওয়াট X ১টি  X ৪ ঘন্টা X ৩০ দিন= ৬,০০০ ওয়াট-ঘন্টা।

৫। রেফ্রিজারেটর = ১৫০ ওয়াট X ১টি  X ১২ ঘন্টা X ৩০ দিন= ৫৪,০০০ ওয়াট-ঘন্টা।

৬। এয়ার কন্ডিশনার = ১৮০০ ওয়াট X ১টি  X ৮ ঘন্টা  X ৩০ দিন= ৪৩২,০০০ ওয়াট-ঘন্টা।

৭। আয়রন = ১০০০ ওয়াট X ১টি  X ০.৫০ ঘন্টা X ৩০ দিন= ১৫,০০০ ওয়াট-ঘন্টা।

৮। ওয়াসিং মেশিন = ৫০০ওয়াট X ১টি  X ১ ঘন্টা X ৩০ দিন= ১৫,০০০ ওয়াট-ঘন্টা।

৯। মাইক্রোওভেন = ১৫০০ওয়াট X ১টি  X ০.০৮ ঘন্টা X ৩০ দিন= ৩,৬০০ ওয়াট-ঘন্টা।

সর্বমোট লোড= ৬৩৬৭৫০ ওয়াট-ঘন্টা = ৬৩৬৭৫০ ওয়াট-ঘন্টা/ ১০০০= ৬৩৬.৭৫ kWh কিলোওয়াট-ঘন্টা কিংবা ৬৩৬.৭৫ ইউনিট বিল।

বর্তমান ট্যারিফ প্লান স্লাব অনুযায়ি এনার্জি বিল = ৭৫ X ৪.১৯ + ১২৫ X ৫.৭২ + ১০০ X ৬ + ১০০ X ৬.৩৪ + ২০০ X ৯.৯৪ + ৩৬.৭৫ X ১১.৪৬ = ৪,৬৭২.৪১ টাকা

এর সাথে, চার্জ = ২১০ টাকা সহ মোট= ৪,৮৮২.৪১ টাকা (থ্রি ফেস লাইনে ২১০ টাকা )

ভ্যাট ৫% = ২৪৪.১২ টাকা

তাহলে, ভ্যাট ৫%  আপনার সর্বমোট বিল দিতে হবে= ৫,১২৬.৫৩ টাকা

এটা আপনার বিলের একটা গড় হিসাব, আপনি চাইলে আপনার ব্যবহৃত যন্ত্রাদির ব্যবহার কম বেশি করে বিদ্যুৎ বিল কমাতে পারেন। যেমন আপনার কিচেন কিংবা টয়লেটে কম ওয়াটের লাইট ব্যবহার করে কিংবা এয়ার কন্ডিশনার এর তাপমাত্রা বাড়িয়ে রেখে অথবা যখন রুমে থাকবেননা তখন রুমের লাইট/ফ্যান বন্ধ রেখে। বিদ্যুৎ বিল হিসাব করাটা আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন। হোমপেইজে গিয়ে আরও নতুন ব্লগ পড়ুন।

এসির বিদ্যুৎ বিল হিসাব

আজকাল বাংলাদেশে যে গরম পরে, অনেকেই এসি কেনার কথা ভাবছেন। আর এসি কেনার আগে অনেকেই চান এসির বিদ্যুৎ বিল হিসাব করে নিতে। উপরের লেখাগুলো মনোযোগ সহকারে পড়ে থাকলে আপনি নিশ্চই অলরেডি হিসেব করে ফেলেছেন।

যদি না করে থাকেন, আমি আপনাকে আবারও সাহায্য করছি। প্রথমে জেনে নিন একটি এসি কত ওয়াটের হয়ে থাকে। আপনার অবগতির জন্য জানাচ্ছি একটি এক টনের এসি সাধারণত ১২০০-১৩০০ ওয়াট, দেড় টনের এসি ১৮০০-১৯০০ ওয়াট এবং দুই টনের এসি ২১০০-২২০০ ওয়াট হয়ে থাকে।

এবার উপরের নিয়ম অনুযায়ী হিসেব কষে নিন। উপরে দৈনিক ৮ ঘন্টা চলার কথা মাথায় রেখে একটি হিসেব করা আছে। মনে রাখবেন, আপনার বাসার অন্যান্য হোম এপ্লায়েন্স এর বিল সহ বিলের স্লাব অনুযায়ী আপনাকে হিসেব করতে হবে।

এই গরম আপনি চাইলেই ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে সহজ কিস্তিতে বেশিরভাগ এসি কিনতে পারবেন। ক্রেডিট কার্ড থাকলে আপনাকে আলাদা ব্যাংক লোনের কথা মাথায় আনতে হবেনা।

ও হ্যা, অনেকেই আপনাকে ইনভারটার সহ এসি কেনার ব্যাপারে উৎসাহিত করতে পারে। এতে খরচও অনেক বেশি, কিন্তু এতে আদৌ কোন লাভ আছে বলে আমি মনে করি না। কারণ টানা ৮ ঘন্টা যদি আপনি এসি না চালান ইনভারটার এসিতে বিলের কোন তারতম্য হয় না।

তাই বেশি দামে ইনভারটার এসি কেনার আগে বিষয়টা ভাল ভাবে জেনে বুঝে কিনবেন।

একটি স্যাম্পল কারেন্ট বিল আপনাদের রেফারেন্সের জন্য দেয়া হল

বিদ্যুৎ বিল হিসাব
স্যাম্পল বিদ্যুৎ বিল

ধন্যবাদ।

বিজ্ঞাপন
Previous articleঅধিকাংশ ফ্যানের পাখা তিনটি কেন? কখনও ভেবে দেখেছেন?
Next articleটিকটিকি কেন লেজ গুটিয়ে না পালিয়ে লেজ খসিয়ে পালায়?
যে ব্যর্থ সে অজুহাত দেখায়। আর যে সফল সে গল্প শোনায়। আমি অজুহাত নয় গল্প শোনাতে ভালবাসি। আসুন কিছু গল্প শুনি, নিজের গল্প অন্যকে শুনাই।

2 COMMENTS