ভিডিও ডাউনলোড করার ওয়েবসাইট

ভিডিও ডাউনলোড করার ওয়েবসাইট খুঁজছেন নিশ্চই? কি ধরনের ভিডিও? কপিরাইট ফ্রি? কেন খুঁজছেন? ভিডিওটি কি কাজে লাগাবেন? আপনি কি ইউটিউবার? আপনি কি ফ্রিল্যান্সিং করেন? যদি সব প্রশ্নের উত্তর আমার সাথে মিলে যায়, তাহলে আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। আজকের আমার এই লেখাটি হয়ত আপনার জন্যই লিখেছি। গুগল সার্চের অন্য কোন পেইজে ঘুরাঘুরি না করে আমাদের ব্লগটি পড়তে থাকুন। আপনার সকল প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবেন এখানেই।

ভিডিও ডাউনলোড করার ওয়েবসাইট কেন প্রয়োজন

আমি যদি ভুল না করে থাকি তাহলে আপনি হয়ত ফ্রিল্যান্সিং করেন কিংবা একজন ইউটিউবার, অথবা ইউটিউব চ্যানেল করতে আগ্রহি কেও একজন। আপনার কাস্টোমারের জন্য ভিডিও তৈরি করতে চান অথবা নিজের ইউটিউব চ্যানেলের জন্য ভিডিও তৈরি করতে চান।

যাই করতে চান না কেন, আপনার লাগবে কপিরাইট ফ্রি ভিডিও। কারণ অন্য কারও তৈরি করা ভিডিও ডাউনলোড করে তা ব্যবহার করলে আপনি কপিরাইট ক্লেইম খেতে পারেন। তাই আপনার দরকার কপিরাইট ফ্রি ভিডিও ডাউনলোড করার ওয়েবসাইট।

ভিডিও ডাউনলোড করার ওয়েবসাইট

কপিরাইট ফ্রি ভিডিও ডাউনলোড করার ওয়েবসাইট গুলোর মধ্যে আমার কাছে সবচেয়ে জনপ্রিয় মনে হয় ক্যানভা। যারা গ্রাফিক্স নিয়ে কাজ কারবার করেন তাদের কাছেও ক্যানভার গুরুত্ব সীমাহীন। এখানে আপনি পাবেন হাজার হাজার কপিরাইট ফ্রি ইমেজ, ভিডিও, ভেক্টর, এলিমেন্ট, ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভার টুলস, অডিও-ভিডিও এডিটিং টুলস ইত্যাদি।

ক্যানভা আপনার পিসিতে ইন্সটল করার দরকার নেই। এটি অনলাইন বেজড গ্রাফিক্স ডিজাইন প্লাটফর্ম। ফ্রি ভার্সনে আপনি কিছুটা কাজের সুযোগ পাবেন কিন্তু মান্থলি বা ইয়ারলি সাবস্ক্রিপশনে আমি সব ফিচার ব্যবহারের সুযোগ পাবেন।

ক্যানভার খরচ কত?

ক্যানভা প্রো ভার্সনের খরচ যে খুব বেশি তা নয়। একটি সাবস্ক্রিপশন ব্যবহার করে সর্বচ্চো ৫ জন কাজ করতে পারে, মাসিক ভিত্তিতে নিলে এর খরচ ১২.৯৯ ডলার। বাৎসরিক ভিত্তিতে নিলে বছরে ১১৯.৯৯ ডলার। তাই পাঁচজন মিলে বাৎসরিক ভিত্তিতে নিলে এর খরচ মাত্র ২ডলার প্রতি মাস। যা ক্যানভার সার্ভিসের তুলনায় খুবই সামান্য বলা যায়।

ক্যনাভা ছাড়া আর কোথায় পাবেন ভিডিও

ক্যানভা ছাড়াও আরও ওয়েবসাইট আছে যেখান থেকে আপনি ভিডিও ডাউনলোড করতে পারেন। নিচে আরও দুটি উপায় দেয়া হল।

ইউটিউব থেকে ভিডিও ডাউনলোড

আপনি হয়ত জানেন না খোদ ইউটিউব থেকেও ভিডিও ডাউনলোড করে আপনার চ্যানেলে ভিডিও আপলোড করে দিতে পারেন। যেসব ভিডিও এর ডেসক্রিপশনে লাইসেন্সে Creative Commons Attribution license (reuse allowed) কথাটি লেখা থাকে সেই ভিডিওগুলো আপনি ইউটিউব ফেয়ার ইউজেস পলিসি অনুযায়ি ডাউনলোড করে আপনার ভিডিওতে যোগ করতে পারেন। এতে আপনি কপিরাইট ক্লেইম খাবেন না।

আপনি আপনার ভিডিও ডেসক্রিপশনে কপিরাইট ডিসক্লেইমার দিয়ে দিতে পারেন নিশ্চিন্তে। কোনভাবেই কপিরাইট ক্লেইম খাবেন না। ডিসক্লেইমার হিসেবে নিচের কথাগুলো ব্যবহার করে দিবেন।

All the videos, songs, images, and graphics used in the video belong to their respective owners and I or this channel does not claim any right over them. Copyright Disclaimer under section 107 of the Copyright Act of 1976, allowance is made for “fair use” for purposes such as criticism, comment, news reporting, teaching, scholarship, education and research. Fair use is a use permitted by copyright statute that might otherwise be infringing.

সাথে আপনি যে ভিডিও ডাউনলোড করে আপনার ভিডিও তৈরি করেছেন সেই ভিডিও লিংক দিয়ে দিবেন। তাহলে আরও ভাল হবে।

ইউটিউব থেকে কিভাবে ভিডিও ডাউনলোড করবেন?

ভিমিও থেকে ডাউনলোড

ভিমিও থেকেও আপনি ভিডিও ডাউনলোড করে নিয়ে আপনার কাজে লাগাতে পারেন যা Creative Common ভিডিও বা CC ভিডিও নামে পরিচিত। আপনি নিশ্চিন্তে ভিমিও থেকে সিসি ভিডিওগুলো ডাউনলোড করে আপনার কাজে লাগাতে পারেন।

This license lets others distribute, remix, tweak, and build upon your work, even commercially, as long as they credit you for the original creation. This is the most accommodating of licenses offered. Recommended for maximum dissemination and use of licensed materials.

আপনার ভিডিও ডেসক্রিপশনে অবশ্যই অরিজিনাল ক্রিয়েটরের লিংক শেয়ার করতে হবে। তাহলে আর কোন সমস্যা নেই।

এছাড়াও আপনি নিচের যেকোন ওয়েব সাইট থেকে কপিরাইট ফ্রি ভিডিও ডাউনলোড করতে পারেনঃ

মোবাইল দিয়ে ভিডিও ডাউনলোড করার এ্যাপস

অনেক সময়ই আমাদের প্রয়োজন পরে নানা ওয়েবসাইট থেকে ভিডিও ডাউনলোড করার। এমনকি ইউটিউব থেকেও ভিডিও ডাউনলোড করা লাগতে পারে। তাই ভিডিও ডাউনলোড করার বেশ কিছু জনপ্রিয় এ্যাপস বা সফটওয়্যার নিয়ে আমি আলোচনা করছি।

১. Snaptube – স্ন্যাপটিউব

ভিডিও ডাউনলোড করার যতগুলো জনপ্রিয় এ্যাপস বা সফটওয়্যার আমি দেখেছি তার মধ্যে স্নাপটিউব আমার সবচেয়ে প্রিয়। এই এ্যাপস এর মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই মোবাইল এর মাধ্যমে ইউটিউব কিংবা ফেসবুকের যেকোন ভিডিও ডাউনলোড করতে পারবেন। নিচে ডাউনলোড লিংক দেয়া হল আপনারা চাইলে ডাউনলোড করে নিতে পারেন।

ভিডিও ডাউনলোড লিংক

২. Vidmate – ভিডমেট

এটিও ভিডিও ডাউনোড করার একটি জনপ্রিয় এ্যাপস। এর মাধ্যমেও আপনি মোবাইলের মাধ্যমে যেকোন সোশ্যাল মিডিয়া কিংবা ভিডিও স্ট্রিমিং ওয়েবসাইট থেকে ভিডিও ডাউনলোড করতে পারবেন। ডাউনলোড লিংক নিচে দেয়া হল।

ভিডিও ডাউনলোড লিংক

৩. Videoder – ভিডিওডার

এটিও একটি বেশ জনপ্রিয় ভিডিও ডাউনলোড এ্যাপস, আপনার মোবাইল থেকেও আপনি লিংক কপি করে ইউটিউব বা সোশ্যাল মিডিয়ার যেকোন ভিডিও ডাউনলোড করে নিতে পারবেন। ডাউনলোড লিংক নিচে দেয়া হল।

ভিডিও ডাউনলোড লিংক

এছাড়াও অনেক ওয়েবসাইটে শুধুমাত্র লিংক কপি করেও আপনি চাইলে আপনার কাংক্ষিত ভিডিও ডাউনলোড করতে পারেন। গুগল সার্চ করে দেখুন। তবে, অনেক ওয়েবসাইটে গিয়ে আপনি হয়রানির শিকার হতে পারেন। এমনকি বিজ্ঞাপন দ্বারা প্রলুব্ধ হয়ে বাজে লিংকে ক্লিক করে আপনার কম্পিউটার ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হতে পারেন। তাই যেকোন লিকে ক্লিক করার আগে বুঝে শুনে ক্লিক করুণ।

আশা করি আমাদের আজকের এই ব্লগ থেকে আপনি ভিডিও ডাউনলোড করার ওয়েবসাইট নিয়ে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। ধন্যবাদ সব্বাইকে।

Previous articleইমেইল একাউন্ট তৈরী করে কিভাবে? ইমেইল এর কাজ কি?
Next articleআমার মোবাইলে কত এমবি আছে কিভাবে জানতে পারব?
Mamun
যে ব্যর্থ সে অজুহাত দেখায়, যে সফল সে গল্প শোনায়। আমি অজুহাত নয় গল্প শোনাতে ভালবাসি। আসুন কিছু গল্প শুনি, নিজের গল্প অন্যকে শুনাই।