প্লাগিয়ারিজম (Plagiarism) কি? কিভাবে প্লাগিয়ারিজম চেক করবেন?

প্লাগিয়ারিজম (Plagiarism) কি? কিভাবে প্লাগিয়ারিজম চেক করবেন?

 

যারা ইন্টারনেটে লেখালেখি কিংবা ব্লগিং এর সাথে কিছুটা জড়িত তারা প্লাগিয়ারিজম (Plagiarism) শব্দটির সাথে কমবেশি পরিচিত। আমি নিজে এই শব্দটির সাথে মোটেই পরিচিত ছিলাম না, জেনেছি এই কিছুদিন হল। আসলে সবারই জানা উচিত তাই এই ব্লগ লেখা। আমার লেখা একটা ব্লগটি কতটা ইউনিক সেটা জানতে গিয়েই এই শব্দটির সাথে পরিচয়। নেটে কোন লেখা প্রকাশ করার আগে এটা জানা জরুরী। প্রথমেই আসুন জানি প্লাগিয়ারিজম (Plagiarism) আসলে কী? সহজ বাংলায় বলতে গেলে অন্যকারো লেখা কিংবা গবেষনা নিজের বলে দাবি করাটাই হল প্লাগিয়ারিজম (Plagiarism)। এক কথায় লেখা কপি-পেস্ট করে ফেলা এবং নিজের বলে চালিয়ে দেয়া। এটা কেও কেও ইচ্ছাকরে করে থাকে আবার কেও অনিচ্ছাকৃতভাবেও করে থাকতে পারে। ইচ্ছাকরেই হোক আর অনিচ্ছাকৃতভাবেই হোক, যেভাবেই কেও করুক না কেন এটা একটা অপরাধ। কিন্তু শুধু আমাদের দেশেই নয় সারা পৃথিবীতেই প্রতিনিয়ত অনেক ব্লগার কিংবা গবেষক প্লাগিয়ারিজম (Plagiarism) এর শিকার হচ্ছেন।

তবে হ্যা, বর্তমান পৃথিবীতে একই সময়ে বা দুই দিন আগে পরে একই বিষয় নিয়ে অন্য কেও বা কয়েকজন লিখতেই পারেন। যেমন করোনা ভাইরাস এখন টক অব দ্য টাউন, বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় বা ব্লগে বিভিন্ন ব্যক্তি এটা নিয়ে লিখছেন। কিন্তু এটা কখনই সম্ভব নয় দুজনের লেখা দাড়ি-কমা সহ মিলে যাওয়া। ইন্টারনেটে বেশ কিছু ওয়েবসাইট আছে যেখানে আপনি সহজেই আপনার লেখা কতটুকু ইউনিক তা পরিক্ষা করে দেখতে পারেন। আপনার লেখা যদি অন্য কোথাও থেকে কাট-কপি-পেষ্ট করা হয় তাহলে আপনাকে ধরিয়ে দেবে। আমি ব্যক্তিগতভাবে যেকোন লেখা পাবলিশ করার আগে অনলাইনে চেক করে নেই।

আজ আমি আপনাকে এমন ৫টি সাইটের ঠিকানা দেব যেখান থেকে আপনি খুব সহজেই প্লাগিয়ারিজম (Plagiarism) চেক করে নিতে পারবেন।

১। Duplicheker

প্লাগিয়ারিজম (Plagiarism) চেক করে দেখার জন্য এটা একটি আনলাইন সফটওয়্যার। আপনার লেখা এখানে পেষ্ট করে দিয়ে কয়েক সেকেন্ডের মাঝেই আপনি রিপোর্ট পেতে পারেন। পিডিএফ, ডকুমেন্ট, আরটিএক্স, টিএক্সটি ফাইল আপনি আপ্লোড করেও আপনি চেক করে নিতে পারেন। আবার শুধুমাত্র লিংক দিয়েও আপনি প্লাগিয়ারিজম (Plagiarism) চেক করে দেখতে পারেন। এটি আমার কাছে সবচেয়ে বেশি স্বাচ্ছন্দকর মনে হয়েছে। ও হ্যা, এই সাইট সম্পূর্ণ ফ্রি।

২। Grammarly

এটি আপনাকে শুধু প্লাগিয়ারিজম (Plagiarism) চেক করেই দিবে না একই সাথে আপনাকে একজন দক্ষ রাইটার করে গড়ে তুলবে। এটা ইন্সটল করার সাথে সাথে আপনি যখন অনলাইনে লিখবেন আপনার ব্যকরনগত ভুল, বানান ভুল সবই ধরিয়ে দিবে। ফ্রি ভার্সন এর চেয়ে প্রিমিয়াম ভার্সন আপনাকে আরও বেশি সুবিধা দিবে। তবে আশা করা যায় ফ্রি ভার্সনেই আপনার কাজ হবে।

৩। Plagiarisma

এটাও Duplicheker এর মতই কাজ করে। ফ্রি ভার্সনে আপনি আপনার কাজ সেরে নিতে পারবেন, পেইড ভার্সনে আনলিমিটেড স্ক্যান করতে পারবেন।

৪। Plagiarismdetector

ফ্রি ভার্সনে আপনি খুব সহজেই ১০০০ শব্দ পর্যন্ত আপনার লেখার স্বতন্ত্রতা যাচাই করে দেখতে পারেন। পেইড রেজিস্টার্ড ইউজাররা আরও দ্রুত এবং একাধিক স্ক্যান করতে পারেন। সাধারণ ইউজারদের ফ্রি ভার্সনই যথেষ্ট। যাদের একসাথে অনেক পেইজ চেক করতে হবে তাদের জন্য পেইড ভার্সন দরকার।

৫। Smallseotools

এটাও একটা চমৎকার প্লাগিয়ারিজম (Plagiarism) অনলাইন চেকার। আপনি লাইন বাই লাইন চেক করতে পারবেন। অন্যকোন সাইটের সাথে আপনার লেখা মিলে গেলে সে আপনাকে সেই সাইটের এড্রেস সহ জানিয়ে দেবে। ১০০০ শব্দ পর্যন্ত আপনি খুব সহজেই প্লাগিয়ারিজম (Plagiarism) চেক করে নিতে পারবেন।

আসলে আপনার লেখা কতটা স্বতন্ত্র তা জানাটা আপনার জন্য যেমন জরুরী তেমনি আপনার লেখা অন্য কেও চুরি করল কিনা সেটা জানাও আপনার জন্য জরুরী। একই সাথে কয়েকটি চেকার দিয়ে চেক করে নিবেন, কারণ একেক সাইট একেক পদ্ধতিতে কাজ করে। গুগল কিংবা কোন সার্চ ইঞ্জিনই আপনার লেখা ইউনিক বা স্বতন্ত্র না হলে র‍্যংকিং এ আনবেনা, কিংবা আপনি আপনার সাইট থেকে ইনকামের জন্য Google Adsense ব্যবহার করে থাকেন গুগল আপনার সাইট ব্লক করে দিতে পারে।

আশা করি আমার এই ব্লগটি আপনার কাজে দিবে। আরও ব্লগ পড়ার জন্য আমার ব্লগের হোমপেইজে ভিজিট করুন।


2 responses to “প্লাগিয়ারিজম (Plagiarism) কি? কিভাবে প্লাগিয়ারিজম চেক করবেন?”

Leave a Reply